ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্মের ইতিবৃত্ত (A dive into the birth of a Cryptocurrency)

By ডিসেম্বর 19, 2021ডিসেম্বর 22nd, 20213 minute read

মনে রাখবেন: এই ব্লগটি লিখেছেন একজন বহিরাগত ব্লগার। এই পোস্টটিতে প্রকাশিত দৃষ্টিভঙ্গি এবং মতামত সম্পূর্ণ শুধুমাত্র লেখকের।

আজকের দিনে, বহু মানুষ ক্রিপ্টোকারেন্সিতে আগ্রহী। প্রযুক্তি ভিত্তিক জনপ্রিয় টোকেনই হোক অথবা শুধুমাত্র এটির থেকে প্রাপ্ত সুবিধাই হোক, ক্রিপ্টোকারেন্সিতে মানুষের আগ্রহ এখন সর্বকালের শ্রেষ্ঠ। 

যেখানে আমাদের মধ্যে অনেকেই স্টকের মতোই একইভাবে লাভ উপার্জন করার জন্য ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় এবং বিক্রয় করে থাকি, কিন্তু এগুলি একটু ভিন্ন। আপনি যখন স্টক ক্রয় করেন, তখন আপনি কোম্পানির মালিকানার ভগ্নাংশ পেয়ে যান, কিন্তু ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্ষেত্রে, আপনার কাছে এক্সচেঞ্জের একটি মাধ্যম থাকে এবং যদি না আপনি একটি ICO-তে অংশগ্রহণ করেন আপনি কোনো ‘কোম্পানি’-তে ক্রয় করেন না। সেইসাথে, ব্লকচেইনের বিকেন্দ্রীভূত স্বভাবের জন্য যা হল এটির অন্তর্নিহিত প্রযুক্তি, ক্রিপ্টো স্টকের মতো নিয়ন্ত্রণ করা হয় না। সেইসাথে, একই সময়ে, এটি সুদও প্রদান করে থাকে।

যাইহোক, বিখ্যাত টোকেন যেমন বিটকয়েন এবং এথার সম্মন্ধে এই কৌতুহল শুধুমাত্র এই সুদের জন্যই। আমাদের মধ্যে অনেকেই, বিশেষভাবে, ক্রিপ্টোকারেন্সির উৎপত্তি সম্মন্ধে জানতে ইচ্ছুক। ক্রিপ্টোকারেন্সির শুধুমাত্র ডিজিটাল মাধ্যমে উপস্থিতি এবং কোনো কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের অধীনে না থাকা এই সকলকিছুই বিবেচনা করে, ক্রিপ্টোকারেন্সির উৎপত্তিস্থল এবং এটির কার্যকারিত সম্মন্ধে বুঝতে পারা একজন অ-প্রযুক্তিবিদের পক্ষে খুবই কঠিন।

যদিও বিটকয়েন খুবই জটিল, কিন্তু সবাই যেমনটা ভাবে এটির অভ্যন্তরীন কাজগুলি ততোটাও বিভ্রান্তকর নয়। 

ক্রিপ্টোকারেন্সি কীভাবে তৈরি হয়?

আপনি যদি কোনো ক্রিপ্টো অথবা ব্লকচেইন সম্মন্ধীয় সাহিত্য পড়ে থাকেন, তাহলে আপনি নিশ্চই “মাইনিং’ শব্দটি জানেন। মাইনিং শব্দটি প্রায়শই ক্রিপ্টো ইন্ডাস্ট্রিতে ব্যাবহার করা হয় কারণ এটি হল ক্রিপ্টোকারেন্সি বিতরণের পদ্ধতি। 

একটি বিষয় অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, সকল ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্লকচেইনের দ্বারা তৈরি, এবং সকল ক্রিপ্টোকারেন্সির লেনদেন ব্লকচেইনের মাধ্যমেই হয়ে থাকে। ব্লকচেইনে একটি লেনদেন সম্পূর্ণ হওয়ার পূর্বে, এটি অবশ্যই প্রথমে অনুরোধ অথবা শুরু করতে হবে। যাচাইকরণ নিশ্চিত করার একটি প্রক্রিয়া, এবং কার্যকরভাবে পরিচালনা করার জন্য একটি ব্লকচেইন নেটওয়ার্কের (যেমন বিটকয়েন নেটওয়ার্ক) মধ্যে অবশ্যই নিয়মিত করতে হবে। 

এই যাচাইকরণগুলি কম্পিউটারের একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে হয়ে থাকে, এবং যারা লেনদেন যাচাই করার জন্য তাদের কম্পিউটার প্রদান করে থাকেন তাদের সেই নেটওয়ার্কের নিজস্ব টোকেন দ্বারা পুরষ্কৃত করা হয়। এই ধরনের কাজকেই মাইনিং বলা হয়। 

যাইহোক, মাইনিং–এর পদ্ধতি ভিন্ন হতে পারে, এবং এই কাজ করার জন্য এখানে দুটি ব্লকচেইন পদ্ধতিও একসাথে ব্যাবহার হতে পারে: প্রুফ-অফ-ওয়ার্ক এবং প্রুফ-অফ-স্টেক। এই দুটির মধ্যে প্রধান পার্থক্য হল কীভাবে যাচাইকরণ সম্পন্ন করা হয়। প্রুফ-অফ-ওয়ার্ক পদ্ধতিতে যাচাইকারীদের অবশ্যই তাদের কম্পিউটার ব্যাবহার করে জটিল গাণিতিক ধাঁধার সমধান করতে হয়। 

একটি লেনদেনের গ্রুপ (একটি ব্লক)-এর যাচাই সম্পূর্ণ হলে যারা সেই মাইনিং-এ অংশগ্রহণ করেছিলেন তাদের পূর্বনির্ধারিত পরিমানে পুরষ্কৃত করা হয়, এবং এইভাবেই আরও কয়েন/টোকেন বাজারে নিয়ে আসা হয়। বিটকয়েন নেটওয়ার্ক হল প্রুফ-অফ-ওয়ার্ক পদ্ধতির একটি উদাহরণ যা প্রচুর পরিমানে শক্তি ব্যাবহার করে।

প্রুফ-অফ-স্টেক পদ্ধতির যাচাইকারীরা শুধুমাত্র সেসকল মানুষজন নন যারা জটিল গাণিতিক ধাঁধার সমধান করেন। তার পরিবর্তে কোন যাচাইকারীর কাছে কতো পরিমাণ টোকেন রয়েছে তার ভিত্তিতে যাচাইকারী নির্বাচন করা হয়, উদাহরণস্বরূপ তাদের নেটওয়ার্কের মধ্যে কতো বড় পরিমাণ স্টেক রয়েছে। সেইসাথে, প্রুফ-অফ-স্টেক পদ্ধতি, প্রুফ-অফ-ওয়ার্ক পদ্ধতির থেকে কম শক্তি ব্যাবহার করে; উদাহরণের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে পোল্কাডট,EOSIO, এবং কারডানো, খুব শীঘ্রই ইথেরিয়ামের নিজেদের সিস্টেম মাইগ্রেট করার পরিকল্পনার মাধ্যমে, এটির বর্তমানে ব্যাবহৃত শক্তি 95% পর্যন্ত কম করবে।

ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য কীভাবে নির্ধারণ করা হয়?

বর্তমান সময়ে কয়েক হাজার ক্রিপ্টোকারেন্সি উপলব্ধ রয়েছে, কিন্তু তাদের মধ্যে কিছুর মূল্য দশ হাজার ডলার আবার কিছুর মূল্য এক ডলারেরও কম। মূল্যের এই পার্থক্যের কারণ কি? এবং কেন কিছু ক্রিপ্টোকারেন্সি অন্যদের তুলনায় মূল্যবান? 

মাইনাররা মাইনিং দ্বারা প্রাপ্ত সকল বিটকয়েন (অথবা এই ক্ষেত্রে যেকোনো কয়েন বলা যতে পারে) নিজেদের কাছে রাখে না। তার পরিবর্তে অনেকেই এক্সচেঞ্জ প্ল্যাটফর্মে এবং পরবর্তী ক্রয়ের জন্য অন্যান্য সাইটে বিক্রয় করে দেয়, এইভাবেই সারা বাজারে এটি ছড়িয়ে যায়। টোকেনটি যে মূল্যে সাধারণ মানুষের কাছে বিক্রয় হয় তার মূল্য বিভিন্ন মানদণ্ডের দ্বারা নির্ধারিত হয়।

তারপর তার উপর মাইনিং-এর মূল্যে যুক্ত করা হয়। প্রুফ-অফ-ওয়ার্ক টোকেন অবশ্যই সেই মূল্যে বিক্রয় হতে হবে যার দ্বারা মাইনিং-এর যন্ত্রাদি এবং বিদ্যুতের খরচও তারা প্রদান করতে পারে। যাইহোক, ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য নির্ধারনের জন্য চাহিদা এবং সরবরাহ হল সবথেকে উল্লেখযোগ্য কারণ। 

সর্বশেষে, কিছু মানুষের জন্য, ক্রিপ্টোকারেন্সি অর্থের সমান, এবং তার মান ওঠানামা করে। উদাহরণস্বরূপ, ডোজকয়েন, যা তার জীবনকালের বেশীরভাগ সময়ই একটি মূল্যহীন ক্রিপ্টোকারেন্সি রূপে স্থবির ছিল। যদিও, ইলন মাস্ক এই টোকেন সম্মন্ধে টুইট করার পর, তার মূল্যে প্রচুর পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছিল।

বিটকয়েনের মূল্যে, যা হল সর্বাধিক ব্যাবহৃত ক্রিপ্টোকারেন্সি, বিভিন্ন কারণের জন্য ওঠানামা করে। যার কারণগুলি হল সীমিত সরবরাহ, প্রতিবার হ্যাল্ভিং-এর (প্রতি ব্লকে টোকেনের সংখ্যা হ্রাস পাওয়া) ক্ষেত্রে মূল্যবৃদ্ধি। প্রতিবার নতুন কিছু উন্নয়ন যার দ্বারা বিটকয়েনের চাহিদা বৃদ্ধি পায়, তখন চাহিদা এবং সরবরাহের দীর্ঘস্থায়ী আইন অনুযায়ী মূল্যে বৃদ্ধি ঘটে।

উপসংহার

যেখানে অনেকেই ক্রিপ্টোকারেন্সির সাথে অপরিচিত, এটির অভ্যন্তরীণ কার্যকারিতা এবং মৌলিক নীতি সহজে বর্ণনা করা হয়েছে, যা আমদের এই উদ্ভাবনী ধারণার প্রতি আরও ভালো উপলব্ধি প্রদান করে।

দাবিত্যাগ: ক্রিপ্টোকারেন্সি আইনি দরপত্র নয় এবং বর্তমানে এটি অনিয়ন্ত্রিত। আপনি অবশ্যই ক্রিপ্টোকারেন্সিতে ট্রেডিং করার পূর্বে অনুগ্রহ করে যথেষ্ট ঝুঁকির মূল্যায়ণ করেছেন কারণ এটি প্রায়শই উচ্চ মূল্যের অস্থিরতার বিষয়। এই বিভাগে প্রদত্ত তথ্য কোনো বিনিয়োগের উপদেশ অথবা WazirX-এর নিজস্ব উপদেশ নয়। WazirX কোনো অগ্রিম সূচনা ছাড়াই যেকোনো কারণের জন্য এবং যেকোনো সময়ে এই ব্লগ পোস্টটি সংশোধন এবং পরিবর্তন করার অধিকার রাখে।

Leave a Reply